মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
পাতা

নাচোল উপজেলার ভাষা ও সংষ্কৃতি

নাচোল উপজেলার ভূ-প্রকৃতি ও ভৌগলিক অবস্থান এই উপজেলার মানুষের ভাষা ও সংস্কৃতি গঠনে ভূমিকা রয়েছে। বাংলাদেশের উত্তর-পশ্চিমে  অঞ্চলে অবস্থিত । এই উপজেলাকে ঘিরে রয়েছে বাংলাদেশেরই অন্যান্য উপজেলা সমূহ। যেমন পশ্চিমে শিবগঞ্জ ও গোমস্তাপুর। উত্তরে রয়েছে পোরশা । পূর্বে নিয়ামতপুর ও তানোর উপজেলা এবং দক্ষিনে রয়েছে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর উপজেলা । এ উপজেলাটি মূলত: হিন্দু এ উপজাতি সাঁওতালদের বসবাস ছিল । কালের প্রবাহে উপজেলার অনেকাংশে মুসলমানদের বসবাস ঘটেছে। এ উপজেলায় বর্তমানে মুসলমান , হিন্দু, সাঁওতাল, কিছু খৃষ্টান ও অন্যান্য জাতি রয়েছে। নাচোল উপজেলার ভাষা মূলত: বাংলা। তবে বসবাসকারী অন্যান্য জাতিরা নিজ নিজ সংষ্কৃতি ও ভাষা ব্যবহার করে থাকে। এখানে বাংলা, দাপ্তরিকভাবে ইংরেজি ব্যবহার হয়।  এখানে ভাষার মূল বৈশিষ্ট্য বাংলাদেশের অন্যান্য উপজেলারমতই, তবুও কিছুটা বৈচিত্র্য খুঁজে পাওয়া যায়। যেমন কথ্য ভাষায় মহাপ্রাণধ্বনি অনেকাংশে অনুপস্থিত, অর্থাৎ ভাষা সহজীকরণের প্রবণতা রয়েছে।

এই এলাকার ইতিহাস পর্যালোচনায় দেখা যায় যে নাচোলের সভ্যতা ক্রমান্বয়ে বৃদ্ধি পাচ্ছে।  এছাড়াও এ এলাকায় কিছুক্ষুদ্র জাতিসত্বা বসবাস করে যাদের নিজস্ব ভাষা ও সংস্কৃতি রয়েছে।সাংস্কৃতিক পরিমন্ডলে নাচোল অবদানও অনস্বীকার্য।

 নাচোল উপজেলায় তেমন ঐতিহাসিক নিদর্শন নেই ।এখানে ইলামিতত্রের তেভাগা আন্দোলনই মূলত: ইতিহাস বহন করে। তাঁর অনুসরনে বর্তমানেও সাংস্কৃতিক চর্চা চালু রয়েছে।

 

    যেসব সরকারী সংস্কৃতি বিষয়ক সংস্থা নাচোল কাজ করছে সেগুলো হলোঃ

   * বাংলাদেশের বিখ্যাত গম্ভীরা গান।

   * পালা গান,

   * যাত্রা গান

    সার্কাস, থিয়েটার ও অন্যান্য ।